November 30, 2020

দেবপ্রসাদ পাল

বাংলাদেশে এক আত্মীয়ের বিয়ের নিমন্ত্রণ রক্ষা করতে গিয়ে বিপাকে পড়লেন এপার বাংলার এক শিক্ষক। তিন মাসেরও বেশি সময় ধরে ওই দেশে আটকে রয়েছেন তিনি। এদিকে তার ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছে দুসপ্তাহ আগে। ঢাকায় ভারতীয় দূতাবাসে যোগাযোগ করেও লাভ হয়নি। এবার দেশে ফিরতে চলতি সপ্তাহে তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যাদের দ্বারস্থ হয়েছেন। উত্তর ২৪ পরগণার চাঁদপাড়ার বাসিন্দা পেশায় শিক্ষক অচিন্ত্য সাহা জানান, মার্চ মাসের শুরুতে বাংলাদেশে এসেছিলাম। এক মাস থাকার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু আচমকা লক ডাউনে দেশে ফেরা আটকে যায়। পরে ভারতীয় দূতাবাসে যোগাযোগ করে বিশেষ বিমানে ফেরার ব্যবস্থা হলেও ভাড়ার টাকা জোগাড় করতে পারেননি। তারপর থেকে ওখানেই আটকে রয়েছেন।
তিনি আরও জানান, এখন তিনি রয়েছেন ফরিদপুরে। সেখান থেকে ঢাকা ছয় ঘন্টার রাস্তা। কিন্তু বাংলাদেশে লক ডাউন চলায় সেখানে যাওয়ার গাড়ি পাওয়া যাচ্ছে না। কিন্তু ফরিদপুরে তার আত্মীয় বাড়ি থেকে বনগাঁ সীমান্ত মাত্র দুই ঘন্টার রাস্তা। রাজ্য সরকার অনুমতি দিলে বনগাঁ সীমান্ত হয়ে বাড়ি ফিরতে পারেবেন তিনি। এদিকে তার অসুস্থ বিধবা মা বাড়িতে একা রয়েছেন। বিস্তারিত জানিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে ইমেল করার পাশাপাশি ডাক মারফৎ চিঠি পাঠিয়েছেন তিনি। তার সমস্যার কথা জেনে পাশে দাঁড়িয়েছেন বিশিষ্ট অঙ্কের শিক্ষক চঞ্চল ঘোষ। প্রয়োজনে তাকে আর্থিক সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি। বিষয়টি নিয়ে তিনি যোগযোগ করেন কলকাতা হাইকোর্টের আইনজীবী মুকুল বিশ্বাসের সঙ্গে। তিনি ওই শিক্ষককে দেশে ফেরাতে বিনামূল্যে আইনি সহায়তা দিচ্ছেন বলে জানা গিয়েছে।