October 21, 2020

 ‘ভার্চুয়াল লোক আদালতে’র সূচি ২২ আগস্ট, ইউটিউব চ্যানেল আনলো হাইকোর্ট     

মোল্লা জসিমউদ্দিন (টিপু)


আজ অর্থাৎ শনিবার সারাবাংলা জুড়ে চলছে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে লকডাউন।রাজ্যসরকারের এই লকডাউনের দিনক্ষণের জন্য ভার্চুয়াল লোক আদালতের সময়সূচি পরিবর্তন ঘটালো কলকাতা হাইকোর্ট। আগামী ২২ আগস্ট সকাল সাড়ে দশটায় এই অনলাইন লোক আদালতের শুভ সূচনা করবেন কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি টিবিএন রাধাকৃষ্ণন। সাথে থাকবেন লিগ্যাল সার্ভিসেস কমিটির চেয়ারম্যান তথা বিচারপতি সৌমেন সেন এবং এই কমিটির কার্যনির্বাহী চেয়ারম্যান তথা বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়। দুপুর বারোটা নাগাদ তিনটি ডিভিশন বেঞ্চের মাধ্যমে ভার্চুয়াল লোক আদালত চলবে। লিগ্যাল সার্ভিসেস কমিটির সচিব অজয় কুমার মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন – ‘ ব্যাংক, বিমা, আর্থিক লোন, বিদুৎ পরিষেবা, মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা, প্রভিডেন্ট ফান্ড প্রভৃতি মামলা গুলির দ্রুত নিস্পত্তির জন্য লোক আদালত চলবে ‘। জানা গেছে, ১২২টির মত মামলার শুনানি চলবে সেদিন অর্থাৎ ২২ আগস্ট। রাজ্য সরকারের করোনা স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখতে লকডাউনের সময়সূচি ঘোষণার আগেই কলকাতা হাইকোর্টের তরফে জানানো হয়েছিল ৮ আগস্ট বসছে অনলাইন লোক আদালত। সম্প্রতি রাজ্য সরকার করোনার প্রকোপ কমাতে ধাপে ধাপে কড়া লকডাউন ঘোষণা করে গোটা রাজ্যব্যাপী । সেখানে আজ অর্থাৎ শনিবার মহানগর কলকাতার পাশাপাশি  সারাবাংলা জুড়ে চলছে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে পুলিশ প্রশাসনের কড়া  লকডাউন। তাই চলতি সপ্তাহে অসংখ্য বিচারপ্রার্থীদের কথা ভেবে কলকাতা হাইকোর্ট ভার্চুয়াল লোক আদালতের সময়সূচি পরিবর্তন ঘটায়। আগামী ২২ আগস্ট দুপুর থেকে শুরু হবে তিনটি ডিভিশন বেঞ্চে ১২২ টি মামলার দ্রুত অনলাইন শুনানি। 
অপরদিকে কলকাতা হাইকোর্টের তরফে নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেল খোলা হলো বিচারপ্রক্রিয়ার গতি কে আরও বাড়াতে। বিশ্বব্যাপী মারণ ভাইরাস করোনার প্রকোপে গোটা দেশজুড়ে পাঁচমাস  ধরে চলছে ধাপে ধাপে লকডাউন প্রক্রিয়া ।  এতে স্বাভাবিক জনজীবন গেছে থমকে। তবে বিচারদানের গতি একটুও কমেনি কলকাতা হাইকোর্টের। ভার্চুয়াল শুনানির মাধ্যমে চলছে গুরুত্বপূর্ণ মামলার নির্দেশ ও রায়দান। ঠিক এইরকম পরিস্থিতিতে মিডিয়েশন এন্ড কনসিলিয়েশন কমিটির তরফে আনা হল এক ইউটিউব চ্যানেল। যেখানে আইনী লড়াই ছাড়াই বাদী বিবাদী পক্ষদের আপস মিমাংসায় আনা হচ্ছে। “বিরোধ মেটানোর বিকল্প পদ্ধতি হিসাবে সোশাল মিডিয়ায় এই ইউটিউব চ্যানেল তৈরি হয়েছে ‘ বলে জানান মিডিয়েশন এন্ড কনসিলিয়েশন কমিটির অন্যতম সদস্য বিচারক অরিন্দম দাস মহাশয়৷ সর্বসাধারণের কাছে মিডিয়েশনের মাধ্যমে কিভাবে মামলার নিস্পত্তি ঘটছে তা বিস্তারিত ইউটিউব চ্যানেলে দেখানো হচ্ছে। আইনজীবী থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত মিডিয়েটররা সচিত্র কর্মশালারর মত জনসচেতনতা বাড়াচ্ছেন এই ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে। কিভাবে দ্রুত বিচার মেলে কোন বিরোধ ছাড়াই, তা বোঝাচ্ছেন অভিজ্ঞরা।সম্প্রতি কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি হরিশ ট্যান্ডন এক সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে বিচারপ্রক্রিয়ায় মিডিয়েশনের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা তুলে ধরেছিলেন। জেলা ও মহকুমা আদালতে কিরুপ কাজ চলছে তার খতিয়ানও সাংবাদিকদের সামনে  সেদিন তুলে ধরেছিলেন ওই বিচারপতি। মিডিয়েশন কেন্দ্রিক এই ইউটিউব চ্যানেলের প্রসারে সাংবাদিক থেকে  আইনজীবীরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিক তা চাইছে ওয়াকিবহাল মহল।