September 28, 2020

করোনা আবহে দ্রুত বিচারদানে ‘অনলাইন লোক আদালত’ চালু হলো হাইকোর্টে

মোল্লা জসিমউদ্দিন (টিপু)


গত মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহে বিশ্বব্যাপি মারণ ভাইরাস করোনার পাদুর্ভাব ঘটে। এই ভাইরাসের সংক্রমণে নিহতের সংখ্যা ক্রমশ উদ্ধমুখী। বর্তমানে গোটা দেশে করোনার থাবায় মারা পড়েছে হাজার হাজার ভারতবাসী। তাই সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সারাদেশে চলছে ধাপে ধাপে কড়া লকডাউন।সমস্ত সরকারি – বেসরকারি অফিস একপ্রকার বন্ধ বলা যায়। নিম্ন আদালত গুলিতে শুধুমাত্র এসিজেম এজলাসে ( পুলিশ ফাইল) মামলা চলছে শুধু। তবে সম্প্রতি সাপ্তাহিক নির্ধারিত দুদিনে হাতেগোনা মামলার শুনানি / রায়দান ঘটছে। অপরদিকে কলকাতা হাইকোর্ট ভার্চুয়াল ( অনলাইন) শুনানিতে মাসিক গড়ে দশদিন মত গুরুত্বপূর্ণ মামলা শুনছে। ঠিক এইরকম পরিস্থিতিতে মামলার পাহাড় ক্রমাগত বাড়ছে। জাতীয় লোক আদালতের মাধ্যমে ছোট ও মাঝারি মাপের মামলা গুলি নিম্ন আদালত থেকে উচ্চ আদালতে দ্রুত নিস্পত্তি ঘটে। গত ফেব্রুয়ারিতে সর্বশেষ জাতীয় লোক আদালত বসেছিল মহকুমা / জেলা এবং হাইকোর্টে। গত ৬ মাসে অন্তত ২ টি জাতীয় লোক আদালত বসতো। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে লকডাউনের সৌজন্যে তা সম্ভব হয়নি। কেননা সশরীরে উপস্থিতি লোক আদালতে দ্রুত মামলার নিস্পত্তির ক্ষেত্রে আবশ্যিক। ঠিক এইরকম পরিস্থিতিতে কলকাতা হাইকোর্ট হাজার হাজার বিচারপ্রার্থীদের কথা ভেবে দুটি দিগন্তকারী পদক্ষেপ গ্রহণ করলো। এক, মিডিয়েশনের গতি কে বাড়াতে হাইকোর্ট নিয়ে এলো নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেল, যা ইতিমধ্যেই রাজ্য জুড়ে জনপ্রিয়তা পাচ্ছে । অন্যটি হলো – অনলাইন লোক আদালত। যা আজ অর্থাৎ শনিবার দুপুরে আনুষ্ঠানিক ভাবে উদঘাটন ঘটলো। ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে ৬০ এর বেশি মামলার নিস্পত্তি ঘটলো কোন জমায়েত ছাড়াই।আজ সকাল সাড়ে দশটায় অনলাইন লোক আদালতের শুভ সূচনা করলেন কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি টিবিএন রাধাকৃষ্ণন। সাথে ছিলেন লিগ্যাল সার্ভিসেস কমিটির চেয়ারম্যান তথা বিচারপতি সৌমেন সেন এবং এই কমিটির কার্যনির্বাহী চেয়ারম্যান তথা বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন দুপুর থেকে সন্ধে নাগাদ তিনটি ডিভিশন বেঞ্চের মাধ্যমে ভার্চুয়াল লোক আদালত চললো। লিগ্যাল সার্ভিসেস কমিটির সচিব অজয় কুমার মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন – ‘ ব্যাংক, বিমা, আর্থিক লোন, বিদুৎ পরিষেবা, মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা, প্রভিডেন্ট ফান্ড প্রভৃতি মামলা গুলির দ্রুত নিস্পত্তির জন্য লোক আদালত চললো ‘। জানা গেছে, ১২২টির মত মামলার শুনানি চলে এদিন । রাজ্য সরকারের করোনা স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখতে লকডাউনের সময়সূচি ঘোষণার আগেই কলকাতা হাইকোর্টের তরফে জানানো হয়েছিল গত ৮ আগস্ট বসবে এই অনলাইন লোক আদালত। সম্প্রতি রাজ্য সরকার করোনার প্রকোপ কমাতে ধাপে ধাপে কড়া লকডাউন ঘোষণা করে গোটা রাজ্যব্যাপী । তাই অসংখ্য বিচারপ্রার্থীদের কথা ভেবে কলকাতা হাইকোর্ট ভার্চুয়াল লোক আদালতের সময়সূচি পরিবর্তন ঘটায়। এদিন তিনটি ডিভিশন বেঞ্চে ১২২ টি মামলার দ্রুত অনলাইন শুনানি চলে। বেশিরভাগ মামলার নিস্পত্তি ঘটেছে মক্কেলদের সশরীরে আদালতে উপস্থিতি ছাড়াই। জানা গেছে, সংশ্লিষ্ট মামলাগুলি বিগত কয়েকমাসে ধাপে ধাপে নথিভুক্তকরণ ঘটেছে কলকাতা হাইকোর্টে। তারপর মামলাগুলি ইমেল মারফত তথ্য গিয়েছে মামলার সাথে যুক্তদের। তিনটি বেঞ্চে গড়ে চল্লিশটি করে মামলা ভাগ করে দেওয়া হয়েছিল। যার আজ ভার্চুয়াল শুনানিতে বেশিরভাগ মামলার নিস্পত্তি ঘটেছে। এদিন কলকাতা হাইকোর্টের তিনটি সিঙ্গেল বেঞ্চে তিনজন বিচারপতি এবং বার এসোসিয়েশনের তিনজন মেম্বার উপস্থিত ছিলেন এজলাসে। পাশাপাশি কলকাতা হাইকোর্টের নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে সরাসরি সম্প্রচারিত হলো অনলাইন লোক আদালতের শুভ সূচনার প্রতিটি মুহুর্ত। কলকাতা হাইকোর্টের এহেন অনলাইন লোক আদালতে খুব খুশি বিচারপ্রার্থীরা। বিগত ছয়মাস যেভাবে করোনা ভাইরাসের থাবায় জনজীবন বিপর্যস্ত। সেখানে বিচার পাওয়াটা দিবাস্বপ্ন হয়ে গিয়েছিল। সেখানে ডিজিটাল পদ্ধতিতে কমলো মামলার সংখ্য৷ কলকাতা হাইকোর্ট সুত্রে প্রকাশ, সর্বপ্রথম অনলাইন লোক আদালতের সাফল্যের কথা মাথায় রেখে পুনরায় অনলাইন লোক আদালতের প্রস্তুতি নেওয়া শুরু হচ্ছে।  আগাামী ২৭

সেপ্টেম্বর পরবর্তী লোক আদালত রয়েছে বলে জানা গেছে