December 5, 2020

সেখ নিজাম আলম

পার্টি দরদী ও প্রক্তন ক্ষেতমজুর নেতা ও প্রাক্তন নির্বাচিত GP সদস্যের জীবনাবসান
২৬ শে অাগষ্ট, গলসী২, ভুঁড়ি অঞ্চলের হলদী ডাঙ্গাঃ- গলসী ২ এরিয়া কমিটি
দীর্ঘ রোগভোগের পর সকাল ০৭–৩০ মিনিটে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভুঁড়ি অঞ্চলের হলদি ডাঙ্গার পার্টি দরদী পূর্বতন ক্ষেতমজুর আন্দোলনের নেতা বিভূতি মূর্মু বয়স ৫৭ শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে রেখে গেলেন দুই পুত্র পুত্রবধূ নাতি নাতনিদের। ২০১১ সালে সরকার পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গেই গোটা পরিবারের উপর নামিয়ে আনে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন। তবুও গোটা পরিবার মৃত্যুভয় কে উপেক্ষা করেই লাল ঝাণ্ডার পাশেই আছেন। প্রয়াতঃ কমরেড প্রাক্তন পার্টি সদস্য ও গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য ছিলেন। ২০১৩ পঞ্চায়েত নির্বাচনের সময়ে এই গ্রামেরই কমরেড মদন সরেন তৃণমূলের হাতে নৃশংস খুন হন বলে অভিযোগ । অসুস্থতার কারণে পার্টি সদস্য পদ পুনর্নবীকরণ করাতে পারেননি। অসুস্থ শরীর নিয়েই সবসময়ই পার্টির পরিস্থিতির উপর নজর রাখতেন ও খোঁজখবর নিতেন। বর্তমানে ব্যাংক কর্মচারী আন্দোলনের একজন সংগঠক ছিলেন। মৃত্যুর খবর শুনে এরিয়া কমিটির সদস্য মোস্তাক হোসেন, নাড়ুগোপাল যশ, সুকুমার দাস, সেখ আতিয়ার, পুস্প দে ও অসংখ্য পার্টির কর্মী দরদী সমর্থক প্রায়াত নেতার বাড়িতে পৌঁছে যান। উপস্থিত নেতৃত্ব প্রয়াত কমরেডের মরদেহ পার্টির পতাকা দিয়ে ঢেকে দেন ও একে একে মরদেহে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। মৃত্যুর খবর শুনে গভীর শোক প্রকাশ করেন জেলা কৃষক সভার সম্পাদক সৈয়দ হোসেন ও ক্ষেতমজুর আন্দোলনের নেতা সাইদুল হক, কাজী জাফর আলী। গভীর শোক প্রকাশ করেছেন গলসী ২ এরিয়া কমিটির সম্পাদক মতিয়ার রহমান।