January 26, 2021

“জীবন মানে মনুষত্ব”


ইন্দ্রানী গুপ্ত

জীবন যেন একটা যন্ত্রনা,একটা ওঠা পড়ার লড়াই,
জীবনের সংজ্ঞা খুঁজতে খুঁজতে এতটা পথ পেরিয়ে এলাম,
তবুও
জানতে ইচ্ছে করে
জীবন কী?
জীবন কি শুধুই যন্ত্রনা দেয়?
জীবন মানে অনেক কষ্ট,
রঙের কষ্ট,ঘরের কষ্ট
অর্থ কষ্ট,প্রেমের কষ্ট,
অনাদরের কষ্ট,অবহেলার কষ্ট,
দিনের কষ্ট,রাতের কষ্ট,
পথের এবং পায়ের কষ্ট,
চারুর কষ্ট,ফেরিওয়ালা র কষ্ট,
শৈল্পিক কষ্ট,রাজনৈতিক কষ্ট,
বোঝাপড়ার কষ্ট,,নীতিবোধের কষ্ট…

এই কষ্ট গুলোর থেকেই বাসা বাঁধে যন্ত্রনা,
যা জীবন খাতার প্রতি পাতায়,
যতই করো হিসাব নিকাশ,
কিছুই রবেনা ..
এই যন্ত্রনা আমরাই তৈরি করি,আসলে শিক্ষা মানুষ কে যাই শেখাক না কেন,জীবনের প্রত্যেকটি পদক্ষেপ, লড়াই অনেক বেশি শেখায়,ডিগ্রি থাকলেও যে প্রকৃত মানুষ হতে পারা যায়,তাও কিন্তু নয়,অর্থ থাকলেও যে শান্তি আসবে তাও কিন্তু নয়,মনুষত্ব বিসর্জন দিয়ে কোনও কিছু লাভ করা যায়না,প্রেমের মধ্যদিয়েই সব জয় করতে হবে।জীবে প্রেম করতে না পারলেই যন্ত্রনা কিছুতেই পিছু ছাড়বেনা।এই প্রেমের জন্য লাগেনা অর্থ,লাগে একটু মানবিকতা বোধ।এই মানবিকতা বোধ দিয়েই জয় করা যায় ভুবনডাঙ্গার মানুষদের,গোটা বিশ্বকে।চালাকি নয়,বুদ্ধিই হলো এই যন্ত্রণার উপশম করার চাবি কাঠি।অপ্রাসঙ্গিক কথা,উপেক্ষা, অবহেলায় একটা মানুষের যন্ত্রণার জন্য যথেষ্ট, এই যন্ত্রনা,অবহেলার থেকে আত্মহননের পথ বেছে নিচ্ছে মানুষ।সব প্রতিযোগিতা সফল এনে দেয়না,মতের মিল নাও হতে পারে তাতে কি??দ্বন্দ, তর্ক না করে,এড়িয়ে যাওয়া টাই তো ভালো।এর থেকে শুরু হয় যন্ত্রনা,এর ফলে মানসিক রোগ,মানসিক ডাক্তারের শরণাপন্ন।এই যন্ত্রনা কে ভুলে গিয়ে আমরা লাফিং ক্লাব য়ে গিয়ে কী হাসতে পারিনা? আমরা কি পারিনা যার যেমন খুশি সাজো র মতন যেমনটা ইচ্ছে তেমন টা করতে?
,নাচতে,গাইতে,অভিনয় করতে ,আঁকতে, কবিতা বলতে,যেমনটা ইচ্ছে হয় তেমনটি।
ভালো না লাগলে আকাশের নীচে সবুজ ঘাসের উপর চিৎকার করে কাঁদতে,না হলে হাসতে যা ইচ্ছা করতে?
বাঁচতে যে হবে,মৃত্যুই যে সত্য,
যতদিন বেঁচে থাকতে হবে
বাঁচার পথ যে নিজেকেই খুঁজে বের করতে হবে,
, থাকতে হবে হাসিমুখে,ভালোবেসে,,,
জীবন শুধু যন্ত্রনা দেয়না, ভালোবাসতে শেখায়,তার গোত্র হতে হবে মনুষত্ব।গান টা মনে পড়ে গেল”
এই জীবন টাকে,হাউই করে,শূণ্যে আমি দেব ঘুরিয়ে,
প্রশংসা আর হাততালি তে প্রাণটা নেব আমি জুড়িয়ে”
এই টুংটাং,ঝুব ঝুপ বৃষ্টি ভেজা রাতে বৃষ্টির গান শুনতে শুনতে কেটে যাবে রজনী,বৃষ্টি ধারায় ধুইয়ে দিক যত যন্ত্রনা,ভোরের আলোয় মানুষের হৃদয়ে জেগে উঠুক মনুষ্যত্বের রং।যন্ত্রনা থেকে জীবন হয়ে উঠুক খুশির পথে…