October 20, 2020

সাধন মন্ডল,

পশ্চিমবঙ্গ বাউরী সমাজ উন্নয়ন সমিতির উদ্যোগে ও রায়পুর শাখার পরিচালনায় চুয়াড় বিদ্রোহ নিয়ে এক আলোচনা সভা ও কর্মীসভা অনুষ্ঠিত হলো জঙ্গলমহলের রায়পুর সবুজ সংঘ মাঠে। উদ্যোক্তাদের মধ্যে রায়পুর ব্লক কমিটির সভাপতি রঘুনন্দন দুলে বলেন চুয়াড় বিদ্রোহ আসলে কাদের দ্বারা সংঘটিত হয়েছিল তা আজও সঠিকভাবে প্রচারিত হয়নি সে বিষয়ে এলাকার মানুষকে সচেতন করতে আমাদের এই আজকের কর্মীসভা। উপস্থিত ছিলেন পশ্চিমবঙ্গ বাউরী সমাজ উন্নয়ন সমিতির রাজ্য সম্পাদক স্বপন কুমার দাস জেলা সম্পাদক বিশ্বনাথ বাউরী, বড়জোড়া ব্লক সম্পাদক বিশ্বজিৎ বাউরী, ছাতনা, ইন্দপুর, সারেঙ্গা, খাতড়া, বিষ্ণুপুর, তালডাংরা সহ বিভিন্ন ব্লকের সংগঠনের নেতৃত্ব এবং বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক রাম দাস বাউরী। রাজ্য সম্পাদক স্বপন কুমার দাস বলেন চুয়াড় বিদ্রোহ নিয়ে বিভিন্ন লেখক বিভিন্নভাবে ব্যাখ্যা করেছেন তা কিন্তু আসল নয়। এখানে এই বিদ্রোহের প্রথম সারিতে ছিল বাউরি সম্প্রদায়ের মানুষজন অথচ বাউরী সম্প্রদায়ের সংগ্রামের ইতিহাস কে ইতিহাসের পাতায় লেখা হয়নি তাদের অস্পৃশ্য করে রেখে দেওয়া হয়েছে। চুয়াড় কথাটি একটি বিকৃত শব্দ আসল কথা চৌ আড়। রাঢ় অঞ্চলে প্রথম ইংরেজরা বাধা পায় সেই নেতৃত্বের প্রথমসারিতে ছিলেন বাউবি সম্প্রদায়ের মানুষজন। চুয়াড় বিদ্রোহের দীর্ঘ ইতিহাস তিনি তুলে ধরেন এছাড়া তিনি বলেন আজ আমাদের সংরক্ষণ নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে হয়তো সংরক্ষণ ব্যবস্থা উঠে যেতে পারে। সরকার নানা রকম ভাবে এই সংরক্ষণ ব্যবস্থা তোলার চেষ্টা চালাচ্ছেন আমরা সংগঠিত না হলে আমাদের ভবিষ্যৎ অন্ধকারের পথে সে বিষয়ে সন্দেহ নেই। তাই এলাকার শুভবুদ্ধি সম্পন্ন সমস্ত বাউরী সমাজ কে একত্রিত করে আন্দোলনে নামার আহ্বান জানাচ্ছি। কর্মীসভায় বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রায় 300 প্রতিনিধি অংশগ্রহন করেন। কর্মী সভার শুরুতে ভারতের সংবিধান প্রণেতা ডক্টর ভীমরাও আম্বেদকর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান এর মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়।